বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
● পদ্মা সেতুতে পরীক্ষামূলক ট্রেন চলাচল উদ্বোধন      ● সাড়ে ৬ ঘণ্টা পর বঙ্গবাজারের আগুন নিয়ন্ত্রণে      ● বঙ্গবাজারের আগুন নেভাতে হাতিরঝিল থেকে পানি নিচ্ছে হেলিকপ্টার      ● বঙ্গবাজারে অগ্নিকাণ্ডের খোঁজখবর রাখছেন প্রধানমন্ত্রী      ● বঙ্গবাজারে ফায়ার সার্ভিসের ৫০ ইউনিট, ৬ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন      ● ৫ ঘণ্টায়ও নেভেনি বঙ্গবাজারের আগুন      ● ফায়ার সার্ভিস সদর দপ্তরে হামলা, টিয়ারশেল নিক্ষেপ      ● আগুন নেভাতে ঘটনাস্থলে ফায়ার সার্ভিসের সাথে নৌ-সেনা ও বিমানবাহিনী      ● বঙ্গবাজারের অগ্নিকাণ্ড: আশপাশের ৪ ভবনে ছড়িয়েছে আগুন      ● জ্বলছে বঙ্গবাজার : প্রতিনিয়ত বাড়ছে আগুনের তীব্রতা     
পিরোজপুরের পিপি আলাউদ্দিনকে তলব করেছেন হাইকোর্ট
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: ১৭ অক্টোবর ২০২২ , সোমবার ০৪ : ১০ পিএম   প্রদর্শিত হয়েছে ৮০৮৭ বার

আদালতে বিচার চলাকালে পিরোজপুরের চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আবু জাফর মো. নোমানকে হুমকি ও তার সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) খান মো. আলাউদ্দিনকে তলব করেছেন হাইকোর্ট। সোমবার (১৭ অক্টোবর) বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের হাইকোর্ট বেঞ্চ পিপিকে আগামী ১৫ নভেম্বর হাজির হয়ে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলেছেন। ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তুষার কান্তি রায় এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।  


এর আগে চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আবু জাফর মো. নোমানকে পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) খান মো. আলাউদ্দিনের হুমকি ও অসৌজন্যমূলক আচরণের ঘটনায় উষ্মা প্রকাশ করে হাইকোর্ট বলেন, ‘একজন পিপির দায়িত্ব আদালতের পরিবেশ সুন্দর রাখতে বিচারককে সহযোগিতা করা। কিন্তু তিনি বিচারকের সঙ্গে বেয়াদবি করেছেন। এটা মেনে নেওয়া যায় না।’ আদালত রাষ্ট্রপক্ষকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‌‘পিরোজপুরের পিপি বিচারকের সঙ্গে খারাপ আচরণ করে একদিকে যেমন আইনজীবী হিসেবে অপরাধ করেছেন। আবার পাবলিক প্রসিকিউটর হিসেবেও অপরাধ করেছেন। তিনি বার কাউন্সিলের যে আইনজীবীর আচরণ বিধি আছে সে আচরণ বিধি ভঙ্গ করেছেন। এখন তার বিরুদ্ধে যদি কনটেম্পট হয়, তাহলে জেল হবে।’


গত ১৯ সেপ্টেম্বর পিরোজপুরের চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আবু জাফর মো. নোমান পিপির বিরুদ্ধে খারাপ আচরণের অভিযোগ এনে সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেলকে চিঠি দেন। চিঠিতে তিনি লিখেছেন, ‘আমি চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে পিরোজপুর জেলায় কর্মরত আছি। আমি প্রতিদিনের ন্যায় বিগত ২৫ জুলাই কার্যদিবসে যথারীতি এজলাস সময়ে এজলাসে বসে বিচারকার্য পরিচালনা করছিলাম। আমার এজলাসে বিচার কার্য চলাবস্থায় আসামি মাওলানা মো. হাফিজুর রহমান ছিদ্দীক, উপদেষ্টা, এহসান রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড বিল্ডার্স লিডিটেডের হাইকোর্ট বিভাগের ক্রিমিনাল মিস মামলায় ৬ সপ্তাহের অন্তবর্তীকালীন জামিনের মেয়াদ শেষ হলে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা মোতাবেক নিয়মিত জামিনের দরখাস্ত শুনানি চলছিল। শুনানিকালে দুপুর আড়াইটার দিকে অভিযোগকারী (বাদী) ও আসামি উভয়পক্ষের ২৫/৩০ জন বিজ্ঞ আইনজীবী নিজেদের মধ্যে বাগ-বিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ে হট্টগোল সৃষ্টি করে স্বাভাবিক বিচারকার্য, জামিনের দরখাস্ত শুনানিতে বিঘ্ন সৃষ্টি করলে আমি এজলাসের পরিবেশ স্বাভাবিক করে শুনানি গ্রহণের স্বার্থে ১৫ (পনের) মিনিট মুলতবি দিয়ে এজলাস থেকে নেমে খাস কামরায় অবস্থান করি। তারপর যথারীতি আমি এজলাসে আসন গ্রহণ করে পুনরায় উল্লেখিত মামলাগুলোর ৩ নম্বর আসামি মাওলানা মো. হাফিজুর রহমান ছিদ্দীকের নিয়মিত জামিন শুনানি শুরু করলে পুনঃরায় অভিযোগকারী (বাদী) ও আসামি উভয়পক্ষের ২৫/৩০ জন বিজ্ঞ আইনজীবী নিজেদের মধ্যে বাগ-বিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ে এবং হট্টগোল সৃষ্টি করে। স্বাভাবিক বিচার কার্য জামিনের দরখাস্ত শুনানিতে বিঘ্ন সৃষ্টি করলে আমি বাধ্য হয়ে পুনরায় এজলাসের পরিবেশ স্বাভাবিক করে শুনানি গ্রহণের স্বার্থে ১০ (দশ) মিনিট মুলতবি দিয়ে এজলাস হতে নেমে খাস কামরায় অবস্থান করি। তারপর যথারীতি আমি এজলাসে আসন গ্রহণ করে স্বাভাবিক বিচারকার্য (জামিন দরখাস্ত শুনানি) পরিচালনার স্বার্থে উল্লেখিত মামলা সমূহের অভিযোগকারী (বাদী) পক্ষের নিযুক্ত আইনজীবী সাইদুর রহমান টিটো এবং আসামিপক্ষের নিযুক্ত আইনজীবী হেমায়েত উদ্দিন ও শ ম হায়দার আলীদের তাদের পক্ষের নিয়োজিত আইনজীবী ব্যতীত অন্যান্য আইনজীবীদের কিছু সময়ের জন্য (উল্লেখিত মামলা সমূহের জামিনের দরখাস্ত শুনানির সময়ের জন্য) এজলাসের বাইরে অবস্থান করার অনুরোধ করলে উভয়পক্ষের প্রয়োজনীয় কিছু সংখ্যক আইনজীবী ব্যতীত অন্যান্য আইনজীবীরা কিছু সময়ের জন্য আমার এজলাস কক্ষ ত্যাগ করে বাইরে অবস্থান করেন। কিন্তু তখন পাবলিক প্রসিকিউটর খান মো. আলাউদ্দিন ও তার সহযোগী কিছু বিজ্ঞ আইনজীবীকে নিয়ে এজলাসে অবস্থান করলে উল্লেখিত মামলা সমূহের নিযুক্ত আইনজীবীরা তাতে আপত্তি করেন। তখন আমি এজলাসের প্রিজাইডিং বিচারক হিসেবে স্বাভাবিক বিচার কার্য পরিচালনার প্রয়োজনে বিজ্ঞ পাবলিক প্রসিকিউটর, পিরোজপুর খান মো. আলাউদ্দিনকে অনুরোধ করে বলি আপনি উল্লেখিত মামলা সমূহের বাদী বা আসামি কোনো পক্ষের নিযুক্ত আইনজীবী না এবং উল্লেখিত মামলা সমূহ ব্যক্তি বিশেষের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট মামলা ও তাতে রাষ্ট্রের কোনো স্বার্থ-সংশ্লিষ্টতা নাই বিধায় আপনি স্বাভাবিক বিচার কার্য পরিচালনায় সহযোগীতার স্বার্থে কিছু সময়ের জন্য এজলাসের বাইরে অবস্থান করেন। কিন্তু পাবলিক প্রসিকিউটর আমার অনুরোধ উপেক্ষা করে হঠাৎ আমার এজলাসে উচ্চ স্বরে বিভিন্ন মন্দ ভাষায় (ব্যবহৃত ভাষা লেখার অযোগ্য) হুমকি-ধমকি প্রদান করে তার পিপিশিপের কর্তৃত্ব প্রদর্শনের মাধ্যমে আমার বিচার কার্যে (জামিন শুনানীতে) বাধা প্রদান করেন। তখন পাবলিক প্রসিকিউটর আমাকে এজলাস হতে নেমে যাওয়ার জন্য হুমকি প্রদান করেন এবং একপর্যায়ে আমাকে গাল মন্দ করে জোরপূর্বক আমার বিচার কার্য সাময়িক বন্ধ করে দেওয়ার চেষ্টা করে হট্টগোল করে এজলাসে কর্মরত কর্মচারীদের ও বিচারপ্রার্থী জনসাধারণের মনে আতঙ্ক সৃষ্টি করে। পরে আমার এজলাসে উপস্থিত কয়েকজন বিজ্ঞ আইনজীবীর হস্তক্ষেপে বিজ্ঞ পাবলিক প্রসিকিউটর খান মো. আলাউদ্দিন আমার এজলাস ত্যাগ করলে আমি উল্লেখিত মামলা সমূহের আসামি মাওলানা হাফিজুর রহমান ছিদ্দীকের নিয়মিত জামিন শুনানি করে তা নিষ্পত্তি করি এবং আমার স্বাভাবিক বিচার কার্য সম্পন্ন করে নির্ধারিত সময়ে এজলাস ত্যাগ করি।’

« পূর্ববর্তী সংবাদ পরবর্তী সংবাদ »





  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকঃ অঞ্জন কর

প্রকাশকঃ জেরীফ আফতাব কর্তৃক

জেড টাওয়ার (৬ষ্ট তলা), বাড়ী- ০৪, রোড-১৩২, গুলশান-১, ঢাকা-১২১২ থেকে প্রকাশিত

ইমেইলঃ tribunenewsbd@gmail.com

© 2022 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত || tribunenewsbd.com